দ্রুত টাকা ইনকামের জন্য সেরা ৫টি ফ্রিল্যান্সিং জব।

ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে চান? তাহলে প্রথমেই আপনাকে নিজের স্কিল ডেভেলপ করতে হবে। কিন্তু কোন কাজ টা শিখবেন বা কোন কাজে কেমন ইনকাম হবে এবং সেরা ৫টি ফ্রিল্যান্সিং জব  নিয়েই আজকের এই আর্টিকেলটি।

আজকে আমরা আলোচনা করব ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য সেরা ৫ টি ফ্রিল্যান্সিং জব বা স্কিল যেগুলোর প্রত্যেকটি স্কিল এর ডিমান্ডই মার্কেটপ্লেসগুলোতে প্রচুর।

দ্রুত টাকা ইনকামের জন্য সেরা ৫ টি ফ্রিল্যান্সিং জব

ফ্রিল্যান্সিং শিখার শুরুতে একটা জিনিস সিউর হয়ে নিবেন যে আপনি কত টুকু সময় দিতে পারবেন। কারণ আপনি যদি সঠিক ভাবে কাজ না শিখেন তাহলে কখনই আপনার কাজ দিয়ে ক্লাইন্ট কে হেপি করতে পারবেন না। যার ফলে ফ্রিল্যান্সিং থেকে ইনকাম করাটা আপনার জন্য একদম ই সম্ভব হয়ে উঠবে না। যত বেশি সময় দিবেন শেখার ক্ষেত্রে ততো ভালো একটা ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে। তাহলে চলুন এইবার কিছু ফ্রিল্যান্সিং স্কিল নিয়ে আলোচনা করি।

৫. পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন।

আপনি যদি কোন মিটিং বা সেমিনারে অংশগ্রহণ করে থাকেন তাহলে তো অবশ্যই দেখে থাকবেন যে সেখানে অনেক রকম প্রেজেন্টেশন ব্যাবহার করা হয় বিভিন্ন ডিজাইনের। মাইক্রোসফট ওয়ার্ড পাওয়ার পয়েন্ট ইউজ করে অসাধারণ এই প্রেজেন্টেশন গুলো তৈরি করেও আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই ভালো মানের প্রেজেন্টেশন বানাতে হবে। নাহলে ক্লাইন্ট কখনই আপনার প্রেজেন্টেশন টি কিনবে না।

প্রেজেন্টেশন এর দৈর্ঘ্য, ডিজাইন, ইত্যাদি দিক এর উপর ডিপেন্ড করবে যে ক্লাইন্ট আপনাকে কেমন  দাম দিবে।

৪. আর্টিকেল রাইটিং।

কম সময়ে কাজ শিখে ইনকাম করার একটি সেরা উপায় হলো আর্টিকেল রাইটিং। আর্টিকেল রাইটিং বলতে কোন একটা টপিকের উপর আর্টিকেল লিখা। উদাহরণ স্বরুপ আপনি যে এই লেখা গুলো পড়তেছেন এইটাও একটা আর্টিকেল। আর এই আর্টিকেল এর টপিক হলো ফ্রিল্যান্সিং।

তেমনি ভাবে ক্লাইন্ট আপনাকে একটা নির্দিষ্ট টপিক দিবে যার উপর আপনাকে রিসার্চ করতে হবে অর্থাৎ গুগল, বিং বা এইরকম সাইট থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে এবং সেখান থেকে আইডিয়া নিয়ে নিজে নিজে লিখতে হবে।

তবে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজড কন্টেন্ট এর দাম মার্কেটপ্লেসগুলোতে প্রচুর। সেক্ষেত্রে এসইও জানা থাকলে বেশী টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৩. এসইও/SEO.

এসইও বা SEO মানে হলো Search Engine Optimization. সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজ করাকেই এসইও বলে। একটা কন্টেন্ট বা প্রোডাক্ট কে সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক করানো বা টপে নেওয়ার জন্য ক্লাইন্টস রা এসইও স্পেশালিষ্টদের কে হায়ার করে।

সেক্ষেত্রে আপনাকে এর পেছনে প্রচুর সময় দিতে হবে। সব কিছু ভালো ভাবে বুঝতে হবে যে কিভাবে কন্টেন্ট বা প্রোডাক্ট কে অপ্টিমাইজ করলে সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক করবে। শুধু কোর্স করলে বা শিখলেই কাজ শেষ হবে না। আপনাকে কাজের ফাকে ফাকে প্রচুর রিসার্চ করতে হবে। কারন সার্চ ইঞ্জিন গুলো প্রতি নিয়ত আপডেট হয়। সার্চ ইঞ্জিন বলতে মুলত গুগল, ইয়াহু, বিং এর মতো সার্চ ইঞ্জিন কে বুঝানো হয়েছে।

এসইও জানা থাকলে মার্কেটে অনেক তাড়াতাড়ি কাজ পাওয়ার পাশাপাশি প্যাসিব অনেক ইনকাম করতে পারবেন। সেগুলা অন্য একটা আর্টিকেলে পাবলিশ করব ইনশাল্লাহ।

আরো পড়ুনঃ মোবাইলের স্পীড বাড়ানোর উপায়

২. ডিজিটাল মার্কেটিং.

মার্কেটপ্লেসের সব চেয়ে ডিমান্ড এর কাজগুলোর মধ্যে একটি হলো ডিজিটাল মার্কেটিং। ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেকগুলো ক্যাটেগরি আছে। তারমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, এসইও, এইগুলা বেশী জনপ্রিয়

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং হলো বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া যেমনঃ ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব ইত্যাদি মার্কেটিং। নিজের কন্টেন্ট, বিজনেস পেজ, বিজনেস চ্যানেল কে অডিয়েন্স বা সঠিক কাস্টমার এর কাছে পৌঁছাতে ক্লাইন্টস রা ডিজিটাল মার্কেটার কে মার্কেটিং এর জন্য টাকা দেয়। কম সময়ে টাকা ইনকাম করার অন্যতম একটি উপায় হলো ডিজিটাল মার্কেটিং।

আরো পড়ুনঃ ইউটিউব ভিডিও র‍্যাংক করার উপায়

১. গ্রাফিক্স ডিজাইন.

ফটোশপ, ইলেস্ট্রেটর এর মাধ্যমে বিভিন্ন গ্রাফিকস তৈরি করা ইত্যদি কাজই হলো গ্রাফিকস ডিজাইন।

বিভিন্ন ব্যানার, পোস্টার, লোগো ইত্যাদি মুলত একজন গ্রাফিকস ডিজাইন করে থাকেন।

লোগো, ব্যানার ইত্যাদি একটি কোম্পানির মানের বহিঃপ্রকাশ এর অন্যতম মাধ্যম। তারজন্যই কোম্পানি গুলো একজন ভালো এবং দক্ষ গ্রাফিক ডিজাইনার কে দিয়ে তাদের কাজ করায় সেক্ষেত্রে আপনিও অনেক বেশী কাজ পেতে পারেন এই সেক্টরে।

 

আজকে যে সেক্টর গুলোর সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দিলাম এইগুলো মুলত কম সময়ে ইনকামের জন্য সেরা ফ্রিল্যান্সিং স্কিল। এইগুলোর চেয়ে আরো অনেক ভালো ভালো কাজ আছে তবে সেগুলো একটু বেশি সময় শিখে তারপর টাকা ইনকামের দিকে আশা লাগে। যেমনঃ ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদি। এইগুলা থেকে ইনকাম করতে হলে আপনাকে অনেক সময় নিয়ে কাজ শিখতে হবে। তবে এই কাজগুলোর ডিমান্ড মার্কেটে অনেক অনেক বেশী এন্ড টাকাও বেশী৷ যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে ভালো একটি ক্যারিয়ার গড়তে চান তাহলে অবশ্যই সময় নিয়ে ভালো মতো কাজ শিখে তারপরেই মার্কেটপ্লেসগুলোতে কাজ করতে যাবেন। নাহকে কখনই ফ্রিল্যান্সিং এ সফল হতে পারবেন না।

 

ধন্যবাদ এত সময় নিয়ে আমাদের সাথে থাকার জন্য।

Leave a Comment